হাওড়ে বিষক্রিয়াঃ দূর্ভোগে হাওড় এলাকার মানুষ

গত মাসের তীব্র বৃষ্টি ও পাহাড়ী ঢলের কারনে প্রায় ১ লাখ হেক্টর বোরো ধানের ক্ষতি হয়েছে হাওড় এলাকায়। কিন্তু এই … পড়তে থাকুন হাওড়ে বিষক্রিয়াঃ দূর্ভোগে হাওড় এলাকার মানুষ

পরিবেশ বিপর্যয় এবং সামাজিক সচেতনতা

পরিবেশ বির্যয় রোধে সামাজিক সচেতনতা প্রয়োজন। বাংলাদেশ আজ এক কঠিন সময়ের মধ্যে আবর্তিত হচ্ছে। উন্নত বিশ্বের কার্বন নিঃসরণের ফলে সবচেয়ে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছি আমরা। এই কার্বন গ্যাস নিঃসরনের ফলে বায়ুমন্ডলীর ওজনস্তর স্ট্রাটোস্ফিয়ার, আইনোস্ফিয়ার, যা সূর্যের ক্ষতিকর আল্ট্রাভায়োলেট-রে (অতি বেগুনী রশ্মি) কে পৃথিবীতে সরাসরি আসতে বাধা দিতো তা মারাত্মকভাবে বিনষ্ট হয়ে গেছে। ফলে পৃথিবীতে তাপমাত্রা বেড়ে যাচ্ছে। পড়তে থাকুন “পরিবেশ বিপর্যয় এবং সামাজিক সচেতনতা”

প্লাস্টিক বর্জ্য ও সামূদ্রিক জীববৈচিত্র্য হুমকির দ্বারপ্রান্তে……(Plastic is killing our marine ecosystem)

প্লাস্টিক বর্জ্য ও সামূদ্রিক জীববৈচিত্র্য হুমকির দ্বারপ্রান্তে……(Plastic is killing our marine ecosystem)

সুন্দর ও সুস্থ ভাবে বাঁচার প্রথম শর্ত হল দূষণ মুক্ত পরিবেশ। আর এই পরিবেশকে যথাযথভাবে সংরক্ষণের কথা উঠলে সবার আগে … পড়তে থাকুন প্লাস্টিক বর্জ্য ও সামূদ্রিক জীববৈচিত্র্য হুমকির দ্বারপ্রান্তে……(Plastic is killing our marine ecosystem)

জলবায়ু পরিবর্তন ও স্বাস্থ্য ঝুঁকি……

জলবায়ু পরিবর্তন ও স্বাস্থ্য ঝুঁকি……

সাধারণত জলবায়ু বলতে কোন নির্দিষ্ট স্থানের দীর্ঘ সময়ের, সাধারণত ২০-৩০ বছরের আবহাওয়ার বিভিন্ন অবস্থার গড়পড়তা হিসাবকে বোঝানো হয়। জলবায়ু সাধারণত … পড়তে থাকুন জলবায়ু পরিবর্তন ও স্বাস্থ্য ঝুঁকি……

ভূমিধ্বস ও পাহাড়ী এলাকায় মানুষের প্রাণহানি…(প্রেক্ষাপট চট্টগ্রাম)

ভূমিধ্বস ও পাহাড়ী এলাকায় মানুষের প্রাণহানি…(প্রেক্ষাপট চট্টগ্রাম)

পাহাড় আমাদের দেশের একটি অমূল্য সম্পদ।  এই পাহাড় হল বিভিন্ন প্রকার প্রাণি ও গাছের এক অপূর্ব মিলনমেলা। তবে এই সম্পদ … পড়তে থাকুন ভূমিধ্বস ও পাহাড়ী এলাকায় মানুষের প্রাণহানি…(প্রেক্ষাপট চট্টগ্রাম)

শব্দ দূষণ ও তার প্রতিকারে করণীয়

♫ ডাকে পাখি খোল আখি, ♪ দেখ সোনালি আকাশ, ♩ বহে ভোরের ও বাতাস…….. দূরদর্শণ(টেলিভিশন) যন্ত্রে সকালের গান শুনতে শুনতেই ঘুম … পড়তে থাকুন শব্দ দূষণ ও তার প্রতিকারে করণীয়

।। পরিবেশ রক্ষায় কিপ্টে হউন।।

।। পরিবেশ রক্ষায় কিপ্টে হউন।।

ইংরেজীতে প্রবাদ আছে, “TIT FOR TAT” অর্থাৎ ইট মারলে পাটকেল খেতে হয় ।

অনেক আগে থেকেই আমরা পরিবেশকে ইট মেরে এসেছি । নিজেদের ইচ্ছেমত ধ্বংস করেছি পরিবেশের উপাদান । উজাড় করেছি বন, দূষিত করেছি মাটি, বায়ু ,পানি । প্রয়োজনের তাগিদে নির্গমন করেছি কার্বন , ফলে কার্বন-ডাই-অক্সাইডে বিষিয়ে উঠেছে বায়ুমন্ডল । বেচারা প্রথম প্রথম সহ্য করত বলে কেউ পাত্তা দিত না, কিন্তু যখন দেখল এইসব মানুষ তাকে ক্রমাগত ইট মেরেই যাচ্ছে, তখনই পাটকেল মারা শুরু করল যা মানুষের কাছে প্রাকৃ্তিক বিপর্যয় হিসেবে চিহ্নিত হল । এবং তার পর থেকেই মানুষ পরিবেশ নিয়ে চিন্তা করতে শুরু করল, চেষ্টা শুরু করল সমযোতার । ফলে কার্বন নির্গমনের হার কমানো আবশ্যিক হয়ে দাঁড়িয়েছে

আমাদের সকলের অল্প অল্প কিপ্টেমিই বায়ুমন্ডলে কার্বন নির্গমনের হার কমানোর জন্য যথেষ্ট না হলেও অনেকাংশেই কার্যকরী …… পড়তে থাকুন “।। পরিবেশ রক্ষায় কিপ্টে হউন।।”